করোনা ওয়ার্ডের এক পুতুল কন্যা

  জাগো ডেস্ক  রবিবার | জুন ২৭, ২০২১ | ০২:২৪ পিএম

ফেইসবুকে ভাসছে এক কন্যাশিশুর ছবি। সে এপ্রোণ পরে বসে আছে হাসপাতালে রোগীদের বেডে। অপলক তাকিয়ে কি যেন দেখছে। কেউ তার সামনে গেলেই বলছে, "স্যানিটাইজ করে দেই আসেন।" এই শিশু কন্যাটি যেখানে বসে আছে সে আসলে একটি হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ড। করোনা রোগীদের সাথেই তার বসবাস! অথচ করোনা রোগী দেখলেই আমরা পালানোর চেষ্টা করি। আপন ভাই বোন সবাই দূরে সরে যায়। মৃত্যু পথযাত্রী করোনা আক্রান্ত আক্রান্ত ঘনিষ্ঠ  আত্মীয়কে শেষবারের মতো দেখতে যাবো দূরে থাক, যারা দেখাশোনা করছে, আমরা ভয়ে তাদের সাথে টেলিফোন কিংবা মোবাইলেও কথা বলি না এই ভয়ে- করোনা যদি মোবাইল কিংবা ফোনে আক্রমণ করে বসে! অথচ এই শিশু কন্যাটি কতটা সাহসিকতার সাথে পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছে। ফেইসবুকে শিশুটির সাহসিকতার কথা সংক্ষেপে তুলে ধরেছেন ডা.জাকির হোসেন

তার দাদা-দাদী করোনায় আক্রান্ত,  বাসায় তার দেখার কেউ নেই বলে করোনা ওয়ার্ডে পুতুল সেজে বসে আছে। সামনে, পিছনে, ডানে-বামে করোনা রোগী তার মধ্যে ছোট এক বেডের ঘর তার। প্রতিদিন ডাক্তার, নার্স, সবার কাজ করা দেখে আর অন্য রোগীদের সাথেও খুব ভালোভাবে কথা বলে। তার সামনে গেলেই বলবে, "স্যানিটাইজ করে দেই আসেন।" মহামারি দেখা কয়জনের কপালে জোটে? সবাই তো করোনা রোগীর নাম শুনলেই পালায়, করোনা রোগীর আশেপাশের বাতাস থেকেও দূরে থাকে কিন্তু বাচ্চা মেয়েটি ভয়ডরহীন। কারণ মৃত্যুকে সামনে থেকে দেখার সাহস সে নিজের ভিতরে এই অল্প বয়সেই রপ্ত করে ফেলেছে, তার কাছে জানতে চাইলাম তোমার কি ইচ্ছে?  বলল- "স্যার আমার দাদা-দাদির মতো সব রোগী যেন ভালো হয়ে যায়!!!"