যুদ্ধক্ষেত্রেই এক তরুণীকে প্রেম নিবেদন ইউক্রেনীয় সেনা

  অনলাইন ডেস্ক:   বুধবার | মার্চ ৯, ২০২২ | ১২:০০ এএম

একদিকে চলছে ভয়ংকর যুদ্ধ। চারিদিকে ভয়ংকর সব মারণাস্ত্রের মুহুর্মুহু শব্দ। এরই মধ্যে তিনি যুদ্ধক্ষেত্রেই এক ইউক্রেনীয় তরুণীকে প্রেম নিবেদন করলেন। মুহূর্তে ভাইরাল হল সেই ভিডিও।

রুশ হামলার পর থেকেই যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনের এমন সব ঘটনা সামনে আসছে, যা দেখে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ছে গোটা বিশ্ব। ক’দিন আগেই এক ইউক্রেনীয় যুগল যুদ্ধক্ষেত্রে বিয়ে সারেন। দু’জনেই সেনাকর্মী। তার আগে ওডেশা শহরে বাঙ্কারে বিয়ে করেছিলেন এক ইউক্রেনীয় যুগল। বাইরে তখন আছড়ে পড়ছিল রুশ গোলা।

ঘটনাটি ইউক্রেনের ঠিক কোথায় ঘটেছে তা জানা যায়নি। তবে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের ২ মিনিটের ভিডিওটি দেখে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছেন নেটিজেনরা। ভিডিওটিতে দেখা গেছে সেনার একটি চেকপোস্ট, যেখানে সাধারণ নাগরিকদের গাড়িতে তল্লাশি চালাচ্ছিল ইউক্রেনীয় সেনরা। ওই সময় একটি গাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন এক ইউক্রেনীয় তরুণী। হঠাৎই তার সামনে হাঁটু মুড়ে বসে পড়েন এক ইউক্রেনীয় সেনা। যাঁর হাতে ছিল একটি আংটি ও একথোকা ফুল।

আংটি ও ফুল সুন্দরী তরুণীর দিকে এগিয়ে ধরে প্রেম নিবেদন করেন তিনি। ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন তরুণী। জরিয়ে ধরেন তরুণ সেনাকর্মীকে। গোটা দৃশ্যটিকে ভিডিও করতে দেখা যায় উপস্থিত সেনাকর্মী ও সাধারণ নাগরিকদের।

ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন সিবিএস মিয়ামির সঞ্চালক কেন্ডিস গিবসন। তা দ্রুত ভাইরাল হয় যায়। সকলেই বলছেন, ইউক্রেনীয় তরুণের এই প্রেম নিবেদনের ভিডিওটি বোমা-গুলি-বারুদের বিরুদ্ধে, নিরীহ মানুষের মৃত্যুর বিরুদ্ধে এক নীরব প্রতিবাদ। এক নেটিজেন লিখেছেন, “যুদ্ধ নয়, এভাবেই ভালবাসার প্রসার হোক”।

প্রসঙ্গত, একটি পরিসংখ্যান বলছে, তেরোদিনের যুদ্ধে ২০২টি স্কুল, ৩৪টি হাসপাতাল নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। সাধারণ বসতি অঞ্চলের ১৫'শ বাড়ি গুঁড়িয়ে দিয়েছে রুশ বাহিনী। দেশের ৯'শটি গুরুত্বপূর্ণ ভবনের পানি ও বিদ্যুৎ পরিষেবা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। মৃত্যু অসংখ্য। জাতিসংঘ জানিয়েছে, ‘মৃত্যুপুরী’ ইউক্রেন ছেড়েছেন ১৭ লাখ মানুষ। এই ধ্বংসের বিরুদ্ধেই প্রেমের বার্তা দিলেন এক তরুণী ও একজন ইউক্রেনীয় সেনা। সূত্র: টাইমস নাউ।