অক্টোবরে হলে উঠা হচ্ছে না জবির ছাত্রীদের

  সোমবার | সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২১ | ০৫:৫৯ পিএম

ইউছুব ওসমান, জবি সংবাদদাতা

আগামী ৭ অক্টোবর থেকে সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি)। সশরীরে পরীক্ষা হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনির্মিত একমাত্র ছাত্রী হল বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে এখনই উঠতে পারবেন না ছাত্রীরা। বিশ্ববিদ্যালয় পুরোপুরি খুলে দেওয়ার পরই হলে তুলা হবে ছাত্রীদের। 

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দৈনিক জাগো প্রতিদিনের সাথে ফোনালাপে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. শামীমা বেগম।

তিনি বলেন, অক্টোবরের ৭ তারিখ থেকে তো শুধু পরীক্ষা হবে। বিশ্ববিদ্যালয় তো আর খুলে দিচ্ছেনা। উপাচার্য মহোদয় বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয় যখন খুলে দিবে তখন ছাত্রীরা হলে উঠবে। এখন তো শুধু পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয় পুরোপুরি খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত তো আর হয়নি। এখন কিছু কাজ বাকি আছে হলের, আমরা সেটা দ্রুত শেষ করার চেষ্টা করছি। তাই যখন বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়া হবে, একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হবে তখন ছাত্রীরা হলে উঠবেন।

আগামী সপ্তাহ থেকেই ছাত্রীরা হলে সিটের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন বলেও তিনি জানান। তিনি বলেন, হলের নীতিমালায় কিছু সংশোধনের প্রয়োজন ছিল। সিন্ডিকেটে তা সংশোধনের নির্দেশ দিয়েছিল। আমরা আজ সব কাজ শেষ করেছি। এখন শুধু উপাচার্য মহোদয়ের স্বাক্ষর বাকি আছে। তাঁর স্বাক্ষর নিয়ে আগামীকালই আইটি দপ্তরে পাঠাবো। দুই-তিন দিনের   মধ্যেই সব কাজ শেষ হয়ে যাবে। আগামী সপ্তাহ থেকেই অনলাইনে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে।

হলে ছাত্রী তুলার ব্যাপারে ঢাকার বাইরের শিক্ষার্থীদের দূরত্ব ও মেধাকে অগ্রাধীকার দেওয়া হবে বলেও তিনি জানান। এবিষয়ে তিনি বলেন, ঢাকার বাইরের যেসব ছাত্রী অনেকটা দূরের তাদেরকে অগ্রাধীকার দেওয়া হবে এবং মেধার ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হবে। আর ছাত্রীদের সিট বরাদ্দের ক্ষেত্রে প্রতি বর্ষ অনুসারে আমরা সিটের বরাদ্দ করেছি। মাস্টার্সের শিক্ষার্থীরা বেশি সিট বরাদ্দ পাবে, এর পর অনার্স চতুর্থ বর্ষের, এরপর তৃতীয় বর্ষের। এভাবে বর্ষ অনুসারে সিট বরাদ্দ কমবে। আমরা প্রতিটি বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্যই সিট বরাদ্দ রেখেছি।
বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান তাঁর দ্বিতীয় মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই হলের কাজ সম্পূর্ণ শেষ না হলেও গতবছরের ২০ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র ছাত্রী হল বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল- এর উদ্বোধন করেন।