কিশোরগঞ্জে প্রবাসীর জমি বিক্রয়ের পায়তারার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

  মোবারক হোসেন, কিশোরগঞ্জ :    বুধবার | আগস্ট ১৮, ২০২১ | ০৮:৫০ পিএম

কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের পুরাতন কোর্ট রোডে নতুন স্টেডিয়াম এলাকার বেলজিয়াম প্রবাসীর জমি জাল কাগজ তৈরি করে বিক্রয় করার অভিযোগে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বেলজিয়াম প্রবাসী মাজেদুল হক সিকদার। বুধবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে কিশোরগঞ্জ ফিসারী রোডস্থ 'কিশোরগঞ্জ নিউজ পোটাল পরিষদ' কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগটি বেলজিয়াম থেকে পাঠিয়েছেন মাজেদুল হক সিকদার।

ভুক্তভোগী মাজেদুল হক সিকদার লিখিত বক্তব্যে জানান, তার পিতা সফির উদ্দিন সিকদার ৮ শতাংশ ভূমি তাকে ও তার আরেক ভাইকে ৮ শতাংশ ভূমি দলিল মূলে রেজিস্ট্রি করে দিয়েছেন। পরববর্তী সময়ে আমরা দুই ভাই আমাদের চার বোনকে তাদের ওয়ারিশকৃত পাওনা জমির বিপরীতে জমির মূল্য পরিশোধ করে লিখিতভাবে আরেকটি নাদাবি দলিল সম্পাদনা করি। অথচ মনোয়ারা উরফে মিনু ২০১৭ সালে এসব ভুয়া ও জাল দলিল তৈরি করে। আর এসব ভুয়া কাগজ তৈরি করতে কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন অফিসের অসাধু অফিস সহকারীদের সহযোগিতা নেয়। এসব ঘটনা জানার পর আমি ফেব্রুয়ারির ২৮ তারিখে আমার প্রতিনিধি মারফত মিনু এবং মিনুর কথিত স্বামী নুরুজ্জামানের বিরুদ্ধে মামলা করি। মামলাটি আদালতে এখনও চলমান। মামলা নং ২৬/২০২১ কিশোরগঞ্জ যুগ্ন জেলা জজ প্রথম আদালত। কিন্তু মামলা করার পরেও জালিয়াতকারী মিনু আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন বিল্ডিংসহ জায়গাটি বিক্রয় করতে। এই পুরো জায়গা দখলের উদ্দেশ্যেই ২০০৭ সালে মিনু মা বাবাকে পাগল বানিয়ে জোরপূর্বক মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি। এমনকি মিনু মা বাবাকে অপহরণ করার মামলায় গ্রেফতার হয় বলেও তিনি জানিয়েছেন। মিনুর বিরুদ্ধে বোনের জায়গার জালিয়াতি মামলাও এখন চলমান রয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। মামলা নং কিশোরগঞ্জ যুগ্ন জেলা জজ আদালত ১৭/২০১৫। ফলে আমি বাধ্য হয়ে মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম হামীমের নিকট আমার উক্ত বিল্ডিংসহ জায়গা বিক্রয়ের একটি বায়নাপত্র দলিল সম্পন্ন করি। বর্তমানে উক্ত জমিতে মিনু তার লোকজন নিয়ে বাঁধা প্রদান করছে।

তিনি আরও জানান, আমি একজন প্রবাসী হিসেবে আমার জমি উদ্ধারসহ বিক্রয় করতে না দেওয়ার জন্য প্রশাসনসহ সাংবাদিক ভাইদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।