দেশি সিগারেট উৎপাদনকারীদের প্রস্তাবনা বাস্তবায়িত হলে রাজস্ব আদায় বাড়বে ৩৮ শতাংশ পর্যন্ত 

বাজেটে নিম্নস্তরে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সিগারেটের মধ্যে প্রতি শলাকার দাম ১ টাকা পার্থক্য করে মূল্য নির্ধারণ অথবা নিম্নস্তর শুধুমাত্র দেশীয় ব্র্যান্ডের জন্য সংরক্ষণের দাবি দেশীয় সিগারেট মালিক সমিতির। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ৪২তম পরামর্শক কমিটির সভায় এ প্রস্তাব তুলে ধরা হয়েছে। অনুষ্ঠানে অথমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর ) চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম উপস্থিত ছিলেন। 
সভায় দেশীয় সিগারেট মালিক সমিতির পক্ষ থেকে প্রস্তাব করা হয়, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে নিম্নস্তরে মূল্য বিভাজন সংক্রান্ত পদক্ষেপ অনুযায়ী দেশি ও আন্তর্জাতিক সিগারেটের প্রতি শলাকার দামের মধ্যে ন্যূনতম ১ টাকা পার্থক্য করে বর্তমান প্রেক্ষাপটে প্রতি ১০ শলাকার মূল্য দেশি সিগারেট ৩৯ টাকা ও আন্তর্জাতিক সিগারেট ৪৯ টাকায় দাম নির্ধারণ করা প্রয়োজন। অথবা ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের অনুমোদিত বাজেট অনুযায়ী বর্তমানে বাজারে নিম্নস্তরে বিদেশি কোম্পানির বাজারজাতকৃত আন্তর্জাতিক সিগারেটের ব্র্যান্ড মধ্যস্তরে উন্নীত করে নিম্নস্তর শুধু দেশি কোম্পানির দেশি সিগারেটের জন্য সংরক্ষিত রাখা। নিম্নস্তরে বিদেশি কোম্পানি ৯০ শতাংশ একচেটিয়া বাজার দখল করে রেয়েছে যেখানে দেশীয় কোম্পানির ১০ শতাংশ। এতে দেশীয় কোম্পানিগুলো হুমকির মুখে । 
প্রস্তাব দু’টির যেকোনো একটি বাস্তবায়িত হলে, সরকারের রাজস্ব আদায় বর্তমান বছরের তুলনায় ২২ থেকে ৩৮ শতাংশ পর্যন্ত বাড়বে বলেও দাবি করা হয়। 
দেশীয় সিগারেট উৎপাদনকারী ২৪টি কোম্পানির শীর্ষ প্রতিনিধিরা এ বৈঠকে অংশ নেন।